ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আপডেট : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৯:৪২
সদ্য সমাপ্ত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন

৪৩ নং ওয়ার্ডে বিপুল ভোটে বিজয়ী শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া

হাফিজুর রহমান
৪৩ নং ওয়ার্ডে বিপুল ভোটে বিজয়ী শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া
নবনির্বাচিত কাউন্সিলর শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া

নিজ নির্বাচনী এলাকার ভোটার ও শুভাকাঙ্খীদের পরামর্শে এবং সাধারণ জনগণের পাশে থেকে তাদের সেবা করে যাওয়ার মানসে, কাউন্সিলর পদে একজন প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া । আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার প্রিয় এই ব্যক্তিত্বটিকে তারা বঞ্চিত করেনি একবিন্দুও। জনগন তাকে ভালোবেসে, শ্রদ্ধায়, স্নেহে ভোট প্রদান করেছে। বিজয়ের মুকুটটি পরিয়ে দিয়েছে তার মাথায়। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৪৩ নং ওয়ার্ডকে নিয়ে দেখা, শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়ার আজন্ম লালিত স্বপ্ন এখন ক্রমান্বয়ে বাস্তব রূপ লাভ করবে। লাটিম প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে ৪১৬৪ টি ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। তার নিকটতম প্রতীদ্বন্দ্বী থেকে ১২২২ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। স্থানীয় ভোটাররা নিজেদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করতে পেরে যারপরনাই খুশি। শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া রাজধানীর খিলক্ষেত থানাধীন সাবেক ডুমনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন করার সুযোগ লাভের মধ্য দিয়ে, আগে থেকেই জনগনের মনের ভাষা বুঝতে পারার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পেরেছিলেন। ছোট-বড় সকলের সাথে বিনয়ী, সদ্ব্যবহারের জন্য তিনি সকলের প্রিয়পাত্র হতে পেরেছেন। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোষ না করা, স্পষ্টভাষী, ন্যায়পরায়ণতার জন্য স্থানীয় ভোটারসহ সকলের নিকট ভরসার পাত্র হয়ে উঠার কারণেই, সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে তার বিরাট ব্যবধানে জয়লাভ করাটা প্রত্যাশিত ছিলো বলেও মন্তব্য করেন কেউ কেউ। তারা জানায়, নির্লোভ, নিরহঙ্কারী শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া তার সহোদর বড়ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা হেলাল উদ্দিন ভূঁইয়ার মুখ উজ্জ্বল করে চলেছেন প্রতিনিয়ত। শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়ার নিকট তার বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয় লাভের কারণ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, ‘আমি জনগনের, জনগনই আমার। আপামর জনসাধারণের বাইরে আমার নিজের বলে কিছু নেই। তাদের সেবা করতে পারা মানেই, আমার নিজেকে সেবা করা। নির্বাচনের আগে তারা আমাকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো তারা তা পালন করেছে, এবার আমার পালা তাদের চাওয়াকে পাওয়ায় পরিণত করা। এলাকার উন্নয়নে তাদের পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা এবং পত্যক্ষ সহযোগিতার মাধ্যমে, আমি সকল কাজ করে ৪৩ নং ওয়ার্ডকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। স্থানীয়দের কাছে শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়ার আকাশচুম্বী, ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তা সম্পর্কে জানতে চাইলে, তারা শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়াকে তাদের নিজেদেরই একজন বলে মনে করেন বলে জানান। এ সময় তারা আরোও যোগ করেন, চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন কালীন সময়ে তারা দেখেছেন, শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়াকে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করে তারা কোনও ভুল করেন নি। তাই এবারও তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজেরা এক একজন শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া হয়ে, তাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছেন। নবনির্বাচিত কাউন্সিলরের কাছে ভোটারদের প্রত্যাশা কি, এমন প্রশ্নের উত্তরে তারা জানান, কাউন্সিলর শরীফুল ইসলাম ভূঁইয়া নিজেই উদ্যোগী হয়ে জনগন ও এলাকার উন্নয়নে ইতোপূর্বে কাজ করেছেন এবং অদ্যাবদি করে চলেছেন, তাই তার সকল সৃষ্টিশীল ও আধুনিক, বিজ্ঞান-মনস্ক কাজে তারা তাকে পূর্ণ সহযোগিতা করে পাশে থাকবেন।

উপরে