ঢাকা, রবিবার, ৭ জুন, ২০২০
আপডেট : ২২ মে, ২০২০ ১৫:৫৫

ঈদের ‘মিসিং-এ তপু খানের মেয়ে ওয়াজিহা ফারজিন খান

অনলাইন ডেস্ক
ঈদের ‘মিসিং-এ তপু খানের মেয়ে ওয়াজিহা ফারজিন খান


অনলাইন ডেস্ক
তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নাট্য নির্মাতা তপু খানের একমাত্র মেয়ে ওয়াজিহা ফারজিন খান প্রথমবারের মতো কোনো নাটকে অভিনয় করছে। তবে নাটকটি তপু খানের পরিচালনায় তৈরি হয়নি। ‘মিসিং’(Missing) নামের এই নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন ‘কাজল আরেফিন অমি’।  
ঈদের ২য় দিন বাংলাভিশনের পর্দায় ৬টা ৩৫ মিনিটে প্রচার হবে ‘মিসিং’ নাটকটি। নাটকটিতে অপুর্ব ও তানজিন তিশার মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছে ওয়াজিহা ফারজিন খান। এছাড়া তুর্জ, রত্না খান, মুকিত  জাকারিয়াসহ আরও অনেকে এখানে অভিনয় করেছেন। 
চ্যানেলে প্রচারের পর নাটকটি ইউটিউব চ্যানেল সারয়ারটিউব (Sarwartube) এ ঈদের ৩য় দিন দুপুর ১২টায় প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে। 
তপু খান বলেন, ‘খুব ভাল লাগছে মেয়ে অভিনয় করেছে ভেবে, কদিন আগে সে একটা ফটোশুটেও অংশগ্রহণ করেছে, মাত্র আড়াই বছরে মেয়ের এসব সাফল্য বাবা হিসেবে উপভোগ করছি। কাজল আরেফিন ভাল মানের পরিচালক, খুব যত্নসহকারে কাজটি করেছেন। এছাড়া অপূর্ব, তিশাসহ যারা মেয়ের কোয়ার্টিস্ট ছিল সবাই খুব সহযোগিতা করেছে আমার মেয়েকে। ও যখন যা করতে চেয়েছে তা করতে দিয়ে শুটিং করানো হয়েছে, এক কথায় মেয়ের ইচ্ছেমতে তারা শুটিং করেছে। চিত্রগ্রাহক নাজমুলও অনেক ধৈর্য সহকারে দৃশ্য ধারণ করেছেন। আমি বাবা হিসেবে আমার মেয়েকে দিয়ে শুটিং করাতে গেলে হয়ত অনেকটাই কষ্ট হত এভাবে লাইট ক্যামেরা সবকিছুর সঙ্গে সমন্বয়টা করতে। এই নাটকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি’।
অনলাইন ডেস্ক
তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নাট্য নির্মাতা তপু খানের একমাত্র মেয়ে ওয়াজিহা ফারজিন খান প্রথমবারের মতো কোনো নাটকে অভিনয় করছে। তবে নাটকটি তপু খানের পরিচালনায় তৈরি হয়নি। ‘মিসিং’(Missing) নামের এই নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন ‘কাজল আরেফিন অমি’।  
ঈদের ২য় দিন বাংলাভিশনের পর্দায় ৬টা ৩৫ মিনিটে প্রচার হবে ‘মিসিং’ নাটকটি। নাটকটিতে অপুর্ব ও তানজিন তিশার মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছে ওয়াজিহা ফারজিন খান। এছাড়া তুর্জ, রত্না খান, মুকিত  জাকারিয়াসহ আরও অনেকে এখানে অভিনয় করেছেন। 
চ্যানেলে প্রচারের পর নাটকটি ইউটিউব চ্যানেল সারয়ারটিউব (Sarwartube) এ ঈদের ৩য় দিন দুপুর ১২টায় প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে। 
তপু খান বলেন, ‘খুব ভাল লাগছে মেয়ে অভিনয় করেছে ভেবে, কদিন আগে সে একটা ফটোশুটেও অংশগ্রহণ করেছে, মাত্র আড়াই বছরে মেয়ের এসব সাফল্য বাবা হিসেবে উপভোগ করছি। কাজল আরেফিন ভাল মানের পরিচালক, খুব যত্নসহকারে কাজটি করেছেন। এছাড়া অপূর্ব, তিশাসহ যারা মেয়ের কোয়ার্টিস্ট ছিল সবাই খুব সহযোগিতা করেছে আমার মেয়েকে। ও যখন যা করতে চেয়েছে তা করতে দিয়ে শুটিং করানো হয়েছে, এক কথায় মেয়ের ইচ্ছেমতে তারা শুটিং করেছে। চিত্রগ্রাহক নাজমুলও অনেক ধৈর্য সহকারে দৃশ্য ধারণ করেছেন। আমি বাবা হিসেবে আমার মেয়েকে দিয়ে শুটিং করাতে গেলে হয়ত অনেকটাই কষ্ট হত এভাবে লাইট ক্যামেরা সবকিছুর সঙ্গে সমন্বয়টা করতে। এই নাটকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি’।

উপরে