ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১
আপডেট : ১২ মার্চ, ২০২১ ২১:৫০
সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্পর্ক

কুমিল্লার মুসলিম তরুণীর সর্বস্ব লুটে নিল সালথার শ্রীনাথ

নুর মোহাম্মাদ, সালথা (ফরিদপুর) সংবাদদাতাঃ
কুমিল্লার মুসলিম তরুণীর সর্বস্ব লুটে নিল সালথার শ্রীনাথ

সোশ্যাল মিডিয়া লাইকিতে কষ্টের স্টোরি পোষ্ট করেছিল কুমিল্লার অষ্টম শ্রেনী পড়ুয়া শিক্ষার্থী। কষ্টের সঙ্গী হওয়ার মিথ্যে স্বপ্ন দেখিয়ে ধর্মীয় পরিচয় গোপন রেখে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে হিন্দু যুবক শ্রীনাথ। দেড় মাসের সম্পর্ক একপর্যায়ে গত বুধবার (১০ই মার্চ) ঢাকা থেকে বিয়ের আশ্বাসে মুসলিম তরুণীকে স্থানীয় ব্যবসায়ী মামুনের সহায়তায় ফরিদপুরের সালথায় নিয়ে আসে উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের আগুলদিয়া গ্রামের শ্যামল মন্ডলের পুত্র শ্রীনাথ মন্ডল (১৯)। 

জানা যায়, সোশ্যাল মিডিয়ায় কুমিল্লার মুসলিম তরুণীর সাথে শ্রীনাথ মন্ডল মুসলিম পরিচয়ে সম্পর্ক গড়ে তুলে। পরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকা থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকাসহ তরুণীকে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় শ্রীনাথ। পরে প্রতারনার শিকার তরুণী প্রেমিকের আসল পরিচয় জানতে পেরে কান্নাকাটি করলে বিষয়টি জানাজানি হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিগণ তরুনীকে উদ্ধার করে পরিবারকে বিষয়টি অবহিত করলে, পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে তরুনীর দুই ভাই এসে তরুণীকে নিয়ে যায়। এসময় তরুনীর সাথে নিয়ে আসা পঞ্চাশ হাজার টাকার সতেরো হাজার টাকা তরুনীর পরিবারকে ফেরত দিলেও বাকি টাকার কোন হদিস মেলেনি।

প্রতারক শ্রীনাথ মন্ডল জানায়, দেড় মাস ধরে আমাদের সম্পর্ক, আমি কোন পরিচয় গোপন রাখিনি। মেয়েটি আসতে চেয়েছে তাই আমি ওকে নিয়ে এসেছিলাম। ঘটনাটি জানাজানি হলে ওর দুই ভাই এসে ওকে নিয়ে গেছে। ও আমার কাছে টাকা দিয়েছিল কত দিয়েছিল তা আমি হিসেব করিনি। তবে এই টাকা আমার কাছ থেকে গৌতম নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় গৌতম ও মামুন কে বাবাবার ফোন করলেও তারা ফোন রিসিভ করেননি। 

সালথা উপজেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি আব্দুর রহমান বলেন, সমাজে এই ধরনের স্পর্শকাতর বিষয়কে রুখতে হবে। 
এই বিষয়ে সালথা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুব্রত গোলদার বলেন, এই ঘটনায় থানায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপরে